জ্ঞান ফিরেছে ইউএনওর, তবে শঙ্কামুক্ত নন

0
49

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে থাকা দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানমের অস্ত্রোপচারের ১১ ঘণ্টা পর জ্ঞান ফিরেছে। রাজধানীর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতালের আইসিইউতে অবজারভেশনে রাখা হয়েছে। চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, তার অবস্থা এখন স্থিতিশীল। তবে তিনি আশঙ্কামুক্ত নন। বৃহস্পতিবার (৩ সেপ্টেম্বর) রাত ১১টা ৫ মিনিটের দিকে তার অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়।


এর আগে রাত ৯টার দিকে তাকে অপারেশন থিয়েটারে নেয়া হয়। এর আগে তার সিটিস্ক্যান করা হয়। প্রেসার চেক করে অবস্থা স্বাভাবিক থাকায় তার অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেন চিকিৎসকরা। তার আগে নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওয়াহিদাকে দেখতে যান জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন। পরে তিনি সাংবাদিকদের জানান, ওয়াহিদা খানমের সঙ্গে তিনি কথা বলেছেন। তার অবস্থা আগের চেয়ে অনেক ভালো জানান।

চিকিৎসকরা জানান, ইউএনও ওয়াহিদার মাথার বাঁ-দিকটা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মাথার কিছু অংশ ভেঙে মস্তিষ্কের ভেতরে প্রেসার তৈরি করেছে। অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে সেটি অপসারণ করার কথা বলেন তারা।বুধবার (২ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে দুর্বৃত্তরা ভেন্টিলেটর ভেঙে সরকারি আবাসিক ভবনে ঢুকে ইউএনও ওয়াহিদাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপাতে শুরু করে। এ সময় চিৎকারে তার সঙ্গে থাকা বাবা ছুটে এসে মেয়েকে বাঁচানোর চেষ্টা করেন। সে সময় দুর্বৃত্তরা তাকেও কুপিয়ে জখম করে। পরে অন্য কোয়ার্টারের বাসিন্দারা বিষয়টি টের পেয়ে পুলিশে খবর দেন।

মারাত্মক আহত অবস্থায় ওয়াহিদাকে উদ্ধার করে প্রথমে ঘোড়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রংপুরে পাঠানো হয়। পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ওয়াহিদা খানমকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকায় পাঠানো হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here