কী কী নিয়ম মেনে চললে স্বামী ও স্ত্রীর মধ্যে সম্পর্ক ভালো থাকে?

0
57

৪০ বছরের বিবাহ পরামর্শদাতা হিসাবে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন গ্যারি চ্যাপম্যান তার আন্তর্জাতিকভাবে সেরা বিক্রিত বই ফাইভ লাভ ল্যাংগুয়েজেস (The Five Love Languages) এ দেখিয়েছেন—আমাদের সবারই ভালোবাসা পাওয়ার এবং প্রকাশ করার একটি প্রাথমিক ভাষা রয়েছে।

গ্যারি চ্যাপম্যান এই ভাষাগুলোকে নাম দিয়েছেন—লাভ ল্যাংগুয়েজ।

১। প্রশংসাসূচক আলাপ (Words of Affirmation) :

ভালোবাসার লোকেদের থেকে প্রশংসাসূচক কথাবার্তা যেমন, আজ দারুণ রান্না করেছো, চুল বাঁধাটা সুন্দর হয়েছে, অথবা সুট-টাই পড়লে তোমাকে বেশ হ্যান্ডসাম লাগে শুনলে অনেকেই বেশি খুশী হয়ে থাকেন।

ছোট্ট করে তোমাকে ভালোবাসি বলা, কৃতজ্ঞতা জানানো, কাজে সাপোর্ট দেয়া, উৎসাহ দেয়া -বাড়িয়ে দিতে পারে আপনার ভালোবাসার সম্পর্কের আয়ুটা।

স্বামী বা স্ত্রীর থেকে প্রশংসা শুনলেই যদি তার প্রতি বেশি ভালোবাসা অনুভব করেন তবে এটাই হতে পারে আপনার প্রাথমিক লাভ ল্যাংগুয়েজ।

আর আপনার স্বামী বা স্ত্রীর প্রাথমিক লাভ ল্যাংগুয়েজ যদি হয় এটা, তবে তাকে এখন থেকে বেশি করে প্রশংসা করুন, সকল কাজে সাপোর্ট দিন আর দিনে একবার হলেও মুখে জানান তাকে কতটা ভালোবাসেন।

২। কোয়ালিটি টাইম (Quality Time) :

কিছু লোকের জন্য মুখে ভালোবাসি বললেও, অভিযোগ করবে তাদেরকে একদমই সময় দেয়া হয় না। কাজের চাপে তাদের জন্মদিন ভুলে যায়, ভালো কোন জায়গায় ঘুরতে নিয়ে যায় না বা কোন রেস্টুরেন্টে খেতে নিয়ে যাওয়ার সময় হয় না।

আর এটা যদি হয় আপনার সমস্যা, তবে কোয়ালিটি টাইম হচ্ছে আপনার লাভ ল্যাঙ্গুয়েজ। কেউ আপনার কথা শুনছে, আপনার সাথে অভিজ্ঞতা শেয়ার করছে, আপনার চোখে চোখ রেখে সময় কাটাচ্ছে—এগুলোই কোয়ালিটি টাইমের মধ্যে পড়ে।

আপনার স্ত্রী তার আজকের দিনের মজার কোন ঘটনার কথা বলছে আর আপনার মনোযোগ যদি থাকে টেলিভিশন বা ফেইসবুক নিউজফিডের দিকে, তবে তাকে কিন্তু মোটেই কোয়ালিটি টাইম দেয়া হলো না!

৩। উপহার পাওয়া (Receiving Gifts) :

প্রিয়জনের থেকে কিছু উপহার পেলেই যদি আপনি তার প্রতি সবথেকে বেশি ভালাবাসা অনুভব করেন তবে এটাই হতে পারে আপনার লাভ ল্যাংগুয়েজ।

ফুল, চকলেট, কার্ড, চিঠি বা যেকোন সারপ্রাইজ গিফট দিতে পারেন আপনার প্রিয়জন কে।

৪। ভালোবাসা কাজে প্রমাণ করে দেখানো (Acts of Service) :

অনেকের ক্ষেত্রে শুধু মুখে ভালোবাসি বললেই ভালোবাসে বিশ্বাস হয় না। ‘মুখের কথা তুচ্ছ’ মনে হয় তাদের কাছে। এ ধরণের মানুষের জন্য ভালো যে বাসেন সেটা কাজে প্রমাণ করে দেখাতে হয়।

এমন কিছু রোজই করা যেন আপনার প্রিয়জনের বিশ্বাস হয় আপনি তাকে সত্যিই কতটা ভালোবাসেন।

যেমন- বাসাবাড়ির কাজে স্ত্রীকে সাহায্য করা, প্লেট-বাসন ধুয়ে দেয়া, বাজার করে দেয়া, রান্নায় সাহায্য করা, চুল বেঁধে দেয়া, অথবা স্বামীর প্রোজেক্টে সাহায্য করা, তার সুট-টাই চাওয়ার আগেই রেডি রাখা।

৫। শারিরিক স্পর্শ (Physical Touch) :

আর উপরের চারটার কোনটাতেই যদি আপনি আপনার প্রিয়জনের প্রতি ভালোবাসা অনুভব না করেন, তবে আপনার লাভ ল্যাংগুয়েজ হচ্ছে শারিরিক স্পর্শ।

তার হাতটা ধরা, হাগ করা, কিস করা বা আরও গভীর শারিরিক স্পর্শ।


কিন্তু আমার উপরের পাঁচটিই ভালো লাগে।’ —আপনার যদি এমন মনে হয়, তবে খেয়াল করবেন এর মধ্যে একটি উপায় আছে যেটা আপনার জন্য মূখ্য এবং যেটা নিয়মিত না পেলে আপনি ভালোবাসা অনুভব করেন না।

আপনার জন্য কোন উপায় টা সবথেকে বেশি ভালোবাসা অনুভব করতে সাহায্য করে, তার একটি সিরিয়াল মনের মধ্যে সাজিয়ে নিতে পারেন।

যেমন—

  • প্রশংসাসূচক আলাপ
  • শারিরিক স্পর্শ
  • কোয়ালিটি টাইম
  • উপহার পাওয়া
  • ভালোবাসা কাজে প্রমাণ করে দেখানো

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here